Sunday , September 15 2019
Home / bangladesh / সাংসদপুত্র রনির যাবজ্জীবন

সাংসদপুত্র রনির যাবজ্জীবন



জোড়া খুনের মামলায় সাবেক সাংসদ পিনু খানের ছেলে বখতিয়ার আলম আলম রনিকে আদালতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ছবি: প্রথম আলো "itemprop =" image "data-jadewitsmedia =" {'id': '1413086', 'name': 'ইস্কাটনে জোড়া খুনের মামলায় সাবেক সাংসদ পিনু খানের ছেলে বখতিয়ার আলম রনিকে আদালতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ছবি: প্রথম আলো ',' caption ':' ',' path ':' media / 2019/01/30 / 064899579031a24592bb66db97bd6b7e-5c517133d4c3d.jpg ',' ext ':' jpg ',' type ':' image ',' thumb ':' // paloimages. : 800, 'height': 533, 'link': '', 'target': '', 'title': 'ইস্কাটনে জোড়া খুনের মামলায় সাবেক সাংসদ পিনু খানের ছেলে বখতিয়ার আলম রনিকে আদালতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ছবি: প্রথম আলো ',' alt ':' ইস্কাটনে জোড়া খুনের মামলায় সাবেক সাংসদ পিনু খানের ছেলে বখতিয়ার আলম রনিকে আদালতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ছবি: প্রথম আলো ',' align ':' '} "width =" 800 "src =" https://paloimages.prothom-alo.com/contents/cache/images/800x0x1/uploads/media/2019/01/ 30 / 064899579031a24592bb66db97bd6b7e-5c517133d4c3d.jpg "/> ঢাকার ইস্কাটনে জোড়া খুনের মামলায় সাংসদ খানের ছেলে বখতিয়ার আলম রনির যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। আজ বুধবারবুধবার</p><p>আদালত বলেন, ‘বখতিয়ার আলম রনির পিস্তল থেকে ছোড়া গুলিতে দুটি নিষ্পাপ প্রাণ ঝরে গেছে, এর দায় আসামি এড়াতে পারেন না। আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হলো। ’</p><p>আগে মামলার একমাত্র আসামি বখতিয়ার আলম রনিকে সকাল সাড়ে ৯ ৯ টার দিকে কারাগার থেকে আদালতের হাজতখানায় আনা হয়। বেলা আড়াইটার দিকে রনিকে আদালতের কাঠগড়ায় তোলা হয়।</p><p>আদালত মামলার ঘটনার বিবরণ দিয়ে বলেন, সাক্ষীদের সাক্ষ্য, তদন্ত কর্মকর্তাদের তদন্ত প্রতিবেদন পর্যালোচনায় দেখা যায়, ঘটনার দিন রনি মদ্যপান করেছিলেন। সঙ্গে ছিল পিস্তল। তিনি স্বাভাবিক ছিলেন না। শিশু সন্তান হাসপাতালে ভর্তি ছিল। রনির মাইক্রোবাস মগবাজারের দিকে যায়, এর দশ মিনিটের মাথায় উল্টো পথ দিয়ে আবার ইস্কাটনের দিকে আসে।</p><p>গাড়ির চালক ইমরান ফকির ওই দিন তাঁর (বখতিয়ার আলম রনি) সঙ্গে থাকা কামাল মাহমুদ, টাইগার কামাল এবং জাহাঙ্গীর আলম আদালতে ১৬৪ ধারায় সেদিনের ঘটনার জবানবন্দি দেন। সাক্ষ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, বখতিয়ার আলম রনি তার পিস্তল দিয়েই গুলি ছোড়েন। গুলিতেই রিকশাচালক হাকিম ও সিএনজি অটোরিকশা চালক ইয়াকুব গুলিবিদ্ধ হয়েই হাসপাতালে হাসপাতালে মারা যান। বলা হয়, রনি যে পিস্তল ব্যবহার করেছেন তার লাইসেন্স ছিল কিনা সেই মূল কপি আদালতের কাছে উপস্থাপন করা হয়নি। গুলি আসামি ব্যবহার করতে পারবেন সেই হিসাবের বিবরণও আদালতের কাছে কাছে দেওয়া হয়নি। তবে পুলিশ ২১ টি গুলি আসামির কাছ থেকে উদ্ধার করেছিলেন — এ তথ্য উঠে আসে।</p><p>নিহত রিকশাচালক হাকিম ও সিএনজি অটোরিকশা চালক ইয়াকুবের পরিবারের কাউকে কাউকে দেখা যায়নি।</p><p>সালের ১৩ এপ্রিল গভীর রাতে নিউ ইস্কাটনে একটি গাড়ি থেকে এলোপাতাড়ি এলোপাতাড়ি গুলি ছোড়া হয়। রিকশাচালক আবদুল হাকিম ও অটোরিকশাচালক ইয়াকুব আলী গুরুতর আহত হন হন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৫ এপ্রিল হাকিম এবং এবং ২৩ এপ্রিল ইয়াকুব মারা যান। ঘটনায় হাকিমের মা মনোয়ারা বেগম ১৫ এপ্রিল রমনা থানায় মামলা করেন।সূত্রবিহীন এই এই মামলায় তথ্যপ্রযুক্তি ও দৈনিক জনকণ্ঠ পত্রিকার ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরার সিসি সিসি সাংসদ সাংসদ ডিবি ডিবি নিশ্চিত সিসি সূত্র ধরে একই বছরের ৩০ মে এলিফ্যান্ট রোডের বাসা থেকে থেকে রনিকে গ্রেপ্তার করে ডিবি পুলিশ। থেকে তিনি কারাগারে আছেন।</p></div><p><script>(function(d, s, id) {
 var js, fjs = d.getElementsByTagName(s)[0];
 if (d.getElementById(id)) return;
 js = d.createElement(s); js.id = id;
 js.src =
Source link